অটোয়া, শনিবার ১৭ আগস্ট, ২০১৯
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাৎ বার্ষিকী এবং ‘জাতীয় শোক দিবস’ উপলক্ষে আলোচনা সভা

আশ্রম সংবাদঃ যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভির্যের সাথে অটোয়ার একমাত্র বাংলা ম্যাগাজিন ‘আশ্রম’ প্রতিবারের মত এবারও বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাৎ বার্ষিকী এবং ‘জাতীয় শোক দিবস’ উপলক্ষে এক আলোচনা সভার আয়োজন করে। ‘আশ্রম’ আয়োজিত বঙ্গবন্ধুর ৪৩তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে এ আলোচনা সভা স্থানীয় স্যান্ডিহীল কমিউনিটি সেন্টারে ১৯শে আগষ্ট ২০১৮ইং রোববার বিকালে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ‘বাংলাদেশ-কানাডা এ্যাসোসিয়েশন অব অটোয়া ভ্যালি’(বাকাওভ)-এর সভাপতি শাহ্‌ বাহাউদ্দিন শিশির।

আলোচনার শুরুতেই ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট রাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তাঁর পরিবারের সকল শহীদ সদস্যদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এরপর উপস্থিত সুধীবৃন্দের অংশগ্রহণে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক কর্মকান্ড এবং ১৫ আগষ্ট রাতের নৃশংস হত্যাকাণ্ড নিয়ে সারগর্ভ আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন যথাক্রমে, মমতা দত্ত, ব্যরিষ্টার শামীম হাসান, লেখক মহসীন বখ্‌ত, মুক্তিযোদ্ধা সিকদার মতিয়ার রহমান, মুক্তিযোদ্ধা ফারুক মাহমুদ হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা শাহেদ বখ্‌ত ময়নূ, মোঃ মহসীন আলী, মোহাম্মদ মাকসুদ খান, ড. মনজুর চৌধুরী, ড. ভাস্কর মুখার্জী, সৌরভ বড়ুয়া, ইঞ্জিনিয়ার আনোয়ার খান, ‘বাকাওভ’এর সাধারণ সম্পাদক আছিয়া বেগম, অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি অটোয়াস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের কাউন্সেলর মিয়া মোঃ মাইনুল কবির এবং ‘আশ্রম’ সম্পাদক কবির চৌধুরী। বক্তাগণ তাঁদের বক্তব্যে বলেন যে, বাংলাদেশ রাষ্ট্রের মূল চেতনাকে ধ্বংস করা এবং বাংলাদেশের অগ্রযাত্রাকে রুদ্ধ করার উদ্দেশ্যেই আভ্যন্তরীন ও আন্তর্জাতিক চক্র ১৫ আগষ্টের এই নির্মম হত্যাকান্ডের পরিকল্পনা করে। হত্যাকারীদের বিচার সম্পন্ন হলেও এখনও পরিকল্পনাকারীদের বিচারের আওতায় আনা হয়নি, যা সম্পন্ন করা জাতির একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব।   

বক্তাগণ আরও বলেন যে, ‘৭১এর পরাজিত শক্তি এবং ১৫ আগষ্ট রাতের নির্মম হত্যাকান্ডের চক্রান্তকারীরা এখনও দেশে বিরাজমান এবং আমাদের ধর্মনিরপেক্ষতা ও অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে সর্বতভাবে ধ্বংস করার জন্যে সক্রিয়ভাবে কাজ করছে। এই অপশক্তিকে সমূলে উৎখাত না করতে পারলে, বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলা’ গড়া সম্ভব হবে না।   
‘আশ্রম’ সম্পাদক কবির চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। বিশেষ করে এই প্রবাসে জন্ম নেওয়া পরবর্তী প্রজন্মের কাছে বাংলাদেশের ইতিহাস এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনাদর্শ পৌঁছে দেওয়ার জন্যে সম্মিলিতভাবে কাজ করা ছাড়া উপায় নেই।তিনি তার বক্তব্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন ‘জানা এবং চর্চা’র জন্যে অটোয়ায় “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব পাঠাগার এবং মিলনায়তন” স্থাপনের আশা ব্যক্ত করেন এবং এই বিষয়ে সকলের আন্তরিক সহযোগীতা কামনা করেন।’ 
অটোয়া, কানাডা।