অটোয়া, শনিবার ২১ মে, ২০২২
রণধীর দাস’র দু’টি কবিতা

জয়ধ্বনি 
জয়ধ্বনি, জয়ধ্বনি
হাহাকার ভরা জীবনের ঢেউ এ
বাঁধভাঙা বন্যার মতো,
চারিদিকে অজস্র উচ্ছ্বাসে শুনি
হটাত জয়ধ্বনি।।

বিস্ময়ে চেয়ে দেখি
রাস্তা-ঘাটে, মানুষের চোখে-মুখে, 
খোলা-মাঠে সবুজে-আকাশে 
রাশি রাশি কলহাসি আর,
চিরসবুজ পৃথিবীর বুকে জয়ধ্বনি।।

অপেক্ষারত সুদিনের অবসান ভেঙে 
মনের প্রাঙ্গনে দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে
নতুন প্রভাতে দেখি,
নিষ্ঠুর দানবের সাম্রাজ্যে আঘাত হানা
এক ভয়ংকর যুদ্ধে জয়ীর জয়ধ্বনি।।

শূন্য
আমি শূন্য---
তাই সবার আগে 'এক' হয় তোমাদের হিসেবে
আমার কদর বুঝতে চাও না তোমরা,
অথচ আমি কিছু সংখ্যার শেষে না বসলে
হাজার লক্ষ কোটি কিছুই পরিপূর্ণ হয় না।

তোমরা শুধু ভাবছো যে--
এ শূন্য অনেকে ধরেই না, নামের সংখ্যা মাত্র
শূন্য বলতে বোঝায় শুধু এক ছোট্ট শূন্যমাত্র
জগত্ জুড়ে শূন্য বলে দিয়েছো সব দুরে ছুড়ে
অথচ হাজারের শূন্য কাটলেই, বিষাদ যত্রতত্র।

আমি জানি---
তোমরা গুনের ঘরে 'শূন্য এক্কে' শূন্যই ধরো
কিন্তু 'শূন্য এক্কে'গুনে অন্য কিছ ধরতে পারতে,
তোমাদের কাছে আমার মূল্য হয়তো ক্ষীয়মান
আমি প্রত্যেক দশকের ঘরে উজ্জ্বল সাক্ষ্যে প্রতীয়মান।।

রণধীর দাস। ময়নাগুড়ি, ভারত