অটোয়া, সোমবার ২৩ মে, ২০২২
বিশ্বজিৎ কর -এর কবিতা

একটি কবিতা! 
কবিতা লেখার ছলে তোমাতে মেতে থাকি, 
সেই একই কিছু শব্দের মারপ্যাঁচ! 
আন্তরিকতার শিখরে তোমায় পাই না, 
কেমন যেন এক দূরদ্বীপবাসিনী হিসাবে তুমি প্রতিনিয়ত ঘোরাফেরা করো কবিতার আঙিনায়, ওখানেই জীবনের রোদ খেলে বেড়ায়! 
কবিতার আঙিনায় আমার ভাবনাগুলো বৃষ্টি হয়ে ঝরে পড়ে, জমা জলে কবিতার নৌকো ভাসে, দূর দ্বীপের তটরেখায় থেমে যায়! 
তোমার দেখা পাই না, 
নৌকো আমার ফিরে আসে উজান স্রোতে! 
আসলে তুমি এখন কবিতা হতেও পারো না! 

বৃষ্টি ভেজা কবিতা!
বৃষ্টিকে কথা দিয়েছিলাম -ভিজব আমি! 
কথা রাখতে পারিনি! 
এক বাতাস এসে বলে গেল -
তুমি আসবে অভিমানের পথ বেয়ে! 
তেমাথার সেই জামরুল গাছের হল অভিমান, 
একসাথে ভিজব ওর সাথে, কথা ছিল যে! 
তোমার অপেক্ষায় ছিলাম সেই জামরুল গাছের নিচে, একাকী নীরবে! 
তুমি এলে না..... 
অসংখ্য ঝরাপাতার মর্মরধ্বনিতে বুঝলাম কবিতা কাঁপছে তোমার বিরহে! 
জামরল গাছের ডালে বসে থাকা সেই হলুদ পাখি যেন বলে উঠল -"আয় বৃষ্টি ঝেঁপে.... 
বৃষ্টিতে এখন আর ভেজা হয় না! 

বিশ্বজিৎ কর। পশ্চিমবঙ্গ, ভারত