অটোয়া, শুক্রবার ২০ মে, ২০২২
পাঠক - বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ্যায়

তোমার বুকের প্রতিটি বোতাম আমার কাছে এক একটি উপন্যাস।

নৌকায় চড়িয়ে রেখেছি বাঁশি
সারা শরীরে প্রজাপতির পেলবতা থেকে ঝরছে রেনু
উড়ে চলা চাতকের ঠোঁট
খুলে রেখেছে ব্যাকুলতা।

সময় তোমার কস্তুরী নাভি মেখে সুগন্ধি হয়ে উঠেছে
এখন বাঁধ ভাঙ্গার অপেক্ষা
ভেসে চলা মেঘ ষোড়শীর মতই ঋতুমতী
অঙ্গ পাতা আছে প্রাগৈতিহাসিক বাসরের বুকে
এখন শুধু হৃদয়ের গতি মেপে যাওয়া।

আমি পাগল পাঠকের মত খুঁটিয়ে দেখতে চাই প্রতিটি অক্ষর
তারপর বানভাসি হলে আক্ষেপ রইবে না আর।

ওই শোনা যায় দুটি মেঘের বিভৎস মিলন
অঝোরে ঝরে পড়ছে পৃথিবী।

এই ক্ষণে ঢেকে যাক সমস্ত রজনী।

বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ্যায়। বাঁকুড়া