অটোয়া, শনিবার ২১ মে, ২০২২
জোছনা ও জোছনাপরির গল্প - মোহাম্মদ ইলইয়াছ

ধ্যরাতে জোছনায় প্লাবিত হয়েছিল আমাদের উঠোন
জামরুলের গাছে দুটি হরিয়াল পাখি মগডালে ডাকছিলো
নেবুর পাতায় চুমকুড়ি খাচ্ছিলো একদল ছন্নছাড়া জোনাকি
শুধু আমি, শুধু আমি দৃশ্যমান আলোয় গলছিলাম। 

আমার বাড়িতে বাঁশ বাগান নেই, সেখানে ওঠেনি মায়াবী চাঁদ
একরত্তি জোছনা দেখার জন্য শারদ নিশিতে হেঁটেছি একাকি   
চাঁদ বুড়িটাকে টিপ্পুনি কেটেছি, নভোযানে সওয়ার হতে চেয়েছি
জোছনা মেখে হুমায়ূনের তরীতে-ভাসতে চেয়েছি কখনো। 

সে জোছনা ভরা চন্দ্রাবতী আজ মধ্যরাতে আমার অতিথি
আমার তো নেই ঘর-গেরস্থি, শীতলপাটি বিছানো বারান্দা
শুধু গাছ-গাছালির ঝরাপাতায় ছাওয়া নরোম এঁটেল মাটি
আমার মতো গলে গলে পুলকিত আমেজ কেমন ছড়াচ্ছিলো। 

মধ্যরাতে সেই জোছনায় ডানায় ভরকরা এক শ্বেত-শুভ্র পরি
জোছনার দরিয়ায় ভাসছিলো ঠিক আমার বাড়ির শুন্য আকাশে
পরির সাদা পাড়ে নক্ষত্রের কারুকাজ, চোখে বিদ্ধ হচ্ছিলো
আমি জোছনার মোহ-মুগ্ধকর স্বাদ পেয়েছিলাম আলোয় ভেসে।

মোহাম্মদ ইলইয়াছ
ঢাকা, বাংলাদেশ।