অটোয়া, শনিবার ২১ মে, ২০২২
অপর্না শীল’র দু’টি কবিতা

প্রেমপত্র
হুশ্রমে, অজস্র দাঁতালে পড়া
শরনার্থী সময়ের কবিত্বে লেখা
এক খানি প্রেমপত্র
যা পোষ্টেড হবার নয়।
দ্বিধার টুপি চেপে বলে চলেছি
কলমের নিলাজ পেলবতায়
বিরহীনির নিশ্চুপ আত্মকথন
তোমায় বলার ছিল যে সব
হয়তো বলতে চাইনি।
ভাল লাগার নিরব দুপুর
প্রতীক্ষায় ছিল
তোমার কথামালার বিলাসী আবেগে
মুখর হয়ে উঠবে বলে।
ভালবাসায় ভাল হয়েছে কবে?
কার্পন্যতার ঘরে
সৌজন্যতার ছলে
তোমার শব্দের গন্ধ পেতে চাইতাম?
কালে কালে পদ্যের খোরাক হয়েছে এসব।
হয়তো বোঝার আড়াল
নয়তো না বোঝার ডিগবাজি খেলা
জানতো- কপটতার ভাপে
দুদিকেই আমার জিত।
আজো বুক পকেটের আদরে
ভালবাসার সাদরে
ভাঁজ দেয়া পুরোনো গন্ধ খুজি
এ আমার একমাত্র প্রেমপত্র।।

চেনা মানুষ
মায় চিনতে পারো নি?
দুমুঠো ভরা সময়ের ঋণে,
কন্ঠে শিঊলির সুবাস
হাটু ভেঙ্গে তোমার করতলে।।
চোখ দুটি সেই শস্য ভরা মাঠ,
টিপ করে ফোটা রোদ্দুর পরেছি কপালে।
বালির ভাস্কর্য্যের মতো শরীর
ক্ষয়ে ক্ষয়ে গেছে সময়ের আয়োজনে।
আমার হার্টবিট চলন বলন 
তোমার খুব করে চেনা।
সম্বাভ্য নিরবতা ভেঙ্গে বলতে
খুব সামান্য হৃদয়ের ঋণে
বড় অহংকারের ছোঁয়া।
তা সত্ত্বেও ইতিহাস অমরত্ব 
দেয়নি তোমাকে।
শর্ত বিহীন প্রেমের খেলায়
হারের ভয়তো ছিল না তবু হারলে।
তোমাকে লেখা শেষ চিঠিটা 
অসমাপ্ত আজো
আবেগের চরে আটকে আছে।
আমি তোমার সেই আদরিনী প্রিয়ে
যারে ছুঁতে আজো কাঁদো 
তুমি জলমান মেঘ হয়ে।।  

অপর্না শীল। নোয়াখালী