অটোয়া, শনিবার ২১ মে, ২০২২
প্রতিদান - দিগন্ত কুমার দাস

নিজ হাতে তিল তিল করে,
মাটি খুঁড়ে জল ঢেলে শ্রম দিয়ে গড়েছি বাগান,
গাছ হল, ডাল হল, ডালে ডালে পাতার শ্রী দান,
ফুল পাব,ফল পাব, ছায়া পাব পাহাড় প্রমান,
একে একে নিভে গেল শত দীপশিখা,
স্বপ্নের হল অবসান!

যে হাতে কষ্ট করে বানালাম বাড়ি,
সে বাড়িতে দামী দামী শৌখিন আসবাব!
একটা নয়, দুটো নয়, তিন তিনটে গাড়ি!
সে বাড়িতে বিলেতি কুকুর প্রিয়জন!
সে বাড়িতে চলে শুধু বৌয়ের হুকুম!
নিজের বাড়িতে চলে ঘৃণ্য পরবাস!
আমরা, বুড়ো বাবা- মা ছেলের কাছে ভারি!

কোলেপিঠে যে ছেলেকে করেছি মানুষ,
আধপেটা খেয়ে যারে দিয়েছি খাবার,
দিনরাত খেটেখুটে পড়ালাম যাকে,
চিনতে বড় কষ্ট হয় তাকে!
মানুষের আড়ালে এক মস্ত অমানুষ!

হাসি মুখে ফেলে গেল দূরে, বৃদ্ধাশ্রমে,
প্রতিক্রিয়ার ছিটেফোঁটা দেখিনি দুচোখে,
অবলীলায় বলে গেল - আসব মাঝে মাঝে,
সে কথার বিষবাণ  আজও কানে বাজে!
যাবার সময় হাতে গূঁজে দিল টাকা,
কতবড় প্রতিদান- ভেবে হই সারা!
মা- বাবার চোখের জল তার কাছে বাঁকা!

দিগন্ত কুমার দাস
দক্ষিণ দিনাজপুর,
পশ্চিমবঙ্গ, ভারত