অটোয়া, সোমবার ২৩ মে, ২০২২
জহুরুল ইসলাম-এর দু’টি কবিতা

রূপালি রজনী
চাঁদগলা তরল রাতে ডুবে আছে গাঁও-
বাড়ির আঙিনা- মুথা ঘাস,
একটা মরা বাঁশের ঘুণেধরা আড়;
খড়ের বিচালি।

মাছের পেটের মতো এই রাত-এসে
সোনালি খড়ের দেহে
জড়ো হয়।
পোয়াতি বধুর বুকে সংসারের স্বপ্ন
জাগে-
চুয়ানি ছেড়ে মরদ- ঘরে মন দেবে।

বেড়ার ওপাশে পেঁচা ডাকে
একটানা-
আশঙ্কার চরম আভাস
বুকে এসে বেঁধে।

তবু এই রূপালি রজনী
স্বপন জাগায়...

সে যেন শিউলির ঘ্রাণ
বিভোর রাত্রিতে-
এ জানালার বাতাসে আসে
শিউলির মাতাল ঘ্রাণ।

লজ্জিত শিশির এসে ভিজে দেয় সব-
আঁধারের নরম শরীর,
শিউলির কোমল দেহ;
ঘাস। 

নীল আসমানের-
বাবুই পাখির মতো ঝুলে থাকা চাঁদ
বিভোর হয়ে তাকিয়ে থাকে-
এই মাঠে, ঘাসে।

দুরন্ত শিশুর মতো ক্রমাগত অন্ধকার ভাঙি
চেনা গায়ের সে ঘ্রাণ শুঁকে,
সে যেন শিউলির ঘ্রাণ।

জহুরুল ইসলাম
মির্জাপুর, দাপুনিয়া
পাবনা সদর, পাবনা