অটোয়া, বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল, ২০১৯
কানাডায় ‘অটোয়াতে বসবাসকারী’ বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের বীর মুক্তিযোদ্ধারা সংবর্ধিত

আশ্রম সংবাদঃ গত ১৭ই ডিসেম্বর ২০১৭, কানাডার রাজধানী অটোয়ায় বাংলাদেশের ৪৭তম ‘মহান বিজয় দিবস’ উদযাপন উপলক্ষে অটোয়া হইতে প্রকাশিত, প্রগতিশীল বাংলা ম্যাগাজিন ‘আশ্রম’, স্থানীয় কার্লটন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিখ্যাত ‘কৈলাস মিতাল থিয়েটারে’, অটোয়াতে স্থায়ীভাবে বসবাসকারী বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের বীর মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সংবর্ধনা প্রদান এবং একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার আয়োজন করে।

বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করছে ঊষা মিউজিক স্কুলের শিক্ষার্থী - ফারাহ আকন্দ, মোবাশেরা মহসীন, মানহা মহসীন, সামারা কবির, ফারিজা ইশাল, জেরিন আনন, জারা রফিক, জয়না আজিন হক এবং ফাইজা হেলাল 

কানাডার জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করছে অর্পিতা দাশ ও অহর্ণা চৌধুরী 

বাংলাদেশ এবং কানাডার জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের সময় দাঁড়িয়ে সম্মান প্রদর্শন করছেন উপস্থিত সুধীবৃন্দআমন্ত্রিত অতিথি এবং বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা আ ফ ম মাহবুবুল হকের স্ত্রী কামরুন্নাহার বেবী(ডান থেকে চতুর্থ) ও প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমীন চৌধুরীর স্ত্রী মমতাজ বেগম (ডান থেকে তৃতীয়)।   

সন্ধ্যা ৬-১০ মিনিটে ‘মহান বিজয় দিবস-২০১৭’ উদযাপনের শুরতেই বাংলাদেশ এবং কানাডার জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ মুক্তিযুদ্ধের সকল বীর মুক্তিযোদ্ধা, নির্যাতীত মা-বোন, ও বাঙালির আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করে ‘আশ্রম’ সম্পাদক কবির চৌধুরীর সঞ্চালনায় ‘আশ্রম মঞ্চে’ একে একে আসন গ্রহণ করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি, কানাডায় নিযুক্ত বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় রাষ্ট্রদূত মিজানুর রহমান; বিশেষ অতিথি, বাংলা একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক লেখক গবেষক তাজুল মোহাম্মদ; বীর মুক্তিযোদ্ধা শিকদার মতিয়ার রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা নূরুল হক, বীর মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেন চৌধুরী, বীর মুক্তিযোদ্ধা মনির জামান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ফারুক মাহমুদ হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিকুল ইসলাম বীর প্রতীক, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ বাইতুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ফ ম মাহবুবুল হকের স্ত্রী কামরুন্নাহার বেবী, প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমীন চৌধুরীর স্ত্রী মমতাজ বেগম, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান টরোন্টো নিবাসী এডভোকেট আফিয়া বেগম, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান অটোয়া বাংলাদেশ দূতাবাসের মিনিস্টার নাঈম উদ্দীন আহমেদ। বাংলাদেশে অবস্থান করার কারণে মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান আলী, মুক্তিযোদ্ধা শাহেদ বখ্‌ত ময়নু, মুক্তিযোদ্ধা আবদুল বাতেন এবং মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দীন আহমেদ সংবর্ধনা সভায় উপস্থিত থাকতে পারেননি। এছাড়াও মঞ্চে আলোচক হিসেবে আসন গ্রহণ করেন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্য লেখক মহসীন বখ্‌ত, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্য এন আর বি নিউজ২৪.কম সম্পাদক সৈয়দ ফারুক আনোয়ার মিন্টু এবং ১৯৬৯-’৭০ এর আইয়ূব বিরোধী আন্দোলনে রাজপথ কাঁপানো সক্রিয় রাজনৈতিক কর্মী ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিশালী কণ্ঠ, কানাডাতে আইন পেশায় নিয়োজিত, আইনজীবী শামীম হাসান।

   স্মৃতিচারণ করছেন মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ বাইতুল ইসলাম 

    স্মৃতিচারণ করছেন মুক্তিযোদ্ধা মনির জামান 

 স্মৃতিচারণ করছেন মুক্তিযোদ্ধা নূরুল হক

 স্মৃতিচারণ করছেন মুক্তিযোদ্ধা ফারুক মাহমুদ হোসেন

  স্মৃতিচারণ করছেন মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেন চৌধুরী

 স্মৃতিচারণ করছেন মুক্তিযোদ্ধা শিকদার মতিয়ার রহমান

 স্মৃতিচারণ করছেন মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন

  স্মৃতিচারণ করছেন মুক্তিযোদ্ধা সন্তান এডভোকেট আফিয়া বেগম

 স্মৃতিচারণ করছেন মুক্তিযোদ্ধা সন্তান বাংলাদেশ দূতাবাসের মিনিস্টার নাঈম উদ্দিন আহমেদ

 স্মৃতিচারণ করছেন বিশেষ অতিথি বাংলা একাডেমি পুরষ্কারপ্রাপ্ত মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক তাজুল মোহাম্মদ

 প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন কানাডায় নিযুক্ত বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় রাষ্ট্রদূত মিজানুর রহমান 

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করছেন 'আশ্রম' সম্পাদক কবির চৌধুরী

দুই পর্বে বিভক্ত অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে ছিল সংবর্ধিত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ের স্মৃতিচারণ এবং আলোচনা। “অটোয়াবাসী হিসেবে আমি গর্বিত। এ শহরে বাস করতেন বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ফ ম মাহবুবুল হক, যাকে কিছুদিন আগে আমরা হারিয়েছি। এ শহরে বাস করেন বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের অনেক বীর মুক্তিযোদ্ধা। আজকে আমরা তাঁদেরকে সংবর্ধনা দিতে পারছি- আমরা এখানে তাঁদের সাথে সমবেত হতে পেরেছি, এটি আমাদের জন্যে গৌরবের। বাঙালী জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধা এবং তাঁদের পরিবারের সদস্যদের সাথে পরিচিত হতে পেরে আমরা ধন্য। আজ আমরা এখানে সমবেত হয়েছি তাঁদের যুদ্ধকালীন সময়ের বীরত্বগাথার কথা, আনন্দের কথা, দুঃখ-বেদনার কথা শুনতে” - অনুষ্ঠানের সঞ্চালক আশ্রম সম্পাদক কবির চৌধুরী এই কথাগুলো বলে সংবর্ধিত সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিচারণের জন্য আমন্ত্রণ জানান। প্রায় আড়াই ঘন্টা স্থায়ী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আবেগজড়িত স্মৃতিচারণে একে একে অংশগ্রহণ করেন- মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ বাইতুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা মনির জামান, মুক্তিযোদ্ধা নূরুল হক, মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেন চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা শিকদার মতিয়ার রহমান, মুক্তিযোদ্ধা ফারুক মাহমুদ হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তা্ন, এডভোকেট আফিয়া বেগম এবং মুক্তিযোদ্ধা সন্তান, অটোয়া বাংলাদেশ দূতাবাসের মিনিস্টার, নাঈম উদ্দীন আহমেদ। মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিচারণ এবং অতিথিদের বক্তব্যের পরে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি, মাননীয় রাষ্ট্রদূত মিজানুর রহমান, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক তাজুল মোহাম্মদসহ সংবর্ধিত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে বাংলা ম্যাগাজিন ‘আশ্রম’ প্রদত্ত্ব ‘আশ্রম সম্মাননা স্মারক’ তুলে দেন। 

  মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেন চৌধুরীর হাতে 'আশ্রম সম্মাননা স্মারক' তুলে দিচ্ছেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মান্যবর মিজানুর রহমান। পাশে আশ্রম সম্পাদক কবির চৌধুরী

 প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা আ ফ ম মাহবুবুল হকের 'সম্মাননা স্মারক' গ্রহণ করছেন তাঁর স্ত্রী কামরুন্নাহার বেবী

 মুক্তিযোদ্ধা শিকদার মতিয়ার রহমানের হাতে 'আশ্রম সম্মাননা স্মারক' তুলে দিচ্ছেন মাননীয় রাষ্ট্রদূত

 মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক তাজুল মোহাম্মদের হাতে 'আশ্রম সম্মাননা স্মারক' তুলে দিচ্ছেন বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় রাষ্ট্রদূত মিজানুর রহমান। পাশে 'আশ্রম' সম্পাদক কবির চৌধুরী

 মুক্তিযোদ্ধা শাহেদ বখ্‌ত ময়নুর পক্ষে 'আশ্রম সম্মাননা স্মারক' গ্রহণ করছে তারই ভ্রাতুষ্পুত্র ফিদা আদিব বখ্‌ত 

অটোয়া থেকে প্রকাশিত প্রগতিশীল ঘরানার বাংলা ম্যাগাজিন ‘আশ্রম’ আয়োজিত প্রায় পাঁচ ঘন্টার অধিক সময় স্থায়ী এই বিজয় উৎসবের দ্বিতীয় পর্বে ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং এতে অংশ নেয় দশ মাস আগে প্রতিষ্ঠিত অটোয়ার বাংলা গানের স্কুল ‘ঊষা মিউজিক স্কুল’ এর শিক্ষার্থী- ফারাহ আকন্দ, মোবাশেরা মহসীন, মানহা মহসীন, সামারা কবির, ফারিজা ইশাল, জেরিন আনন, জারা রফিক, জয়না আজিন হক এবং ফাইজা হেলাল এবং সাদিকা পারভিন চন্দনা। তারা বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতসহ কয়েকটি দলীয় সঙ্গীত এবং একক সঙ্গীত পরিবেশন করে। তাদের সাথে যন্ত্রী হিসেবে ছিলেন ‘ঊষা মিউজিক স্কুলে’র শিক্ষক নন্দিতা ঘোষ(হারমোনিয়াম), শিক্ষক মেসবাহ আলম অর্ঘ্য(তবলা), টরোণ্টো থেকে আগত মেহেদী ফারুক (কী-বোর্ড), ইপশিতা রফিক(সেতার), বিধান চক্রবর্তী(গীটার), ম্রিনান তিদা(গীটার)।    

ঊষা মিউজিক স্কুলের শিক্ষার্থীরা ছাড়াও অটোয়া এবং টরোণ্টো থেকে আগত অতিথি কলাকোশলীরা সঙ্গীতানুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। তাদের মধ্যে সঙ্গীত পরিবেশন করেন- অর্পিতা দাশ, অহর্ণা চৌধুরী, এম এইচ রহমান লিটন, হাদিউল ইসলাম হিরো। কবিতা আবৃত্তি করেন যথাক্রমে- ইপিশিতা বন্নী, শিউলি হক, মাসুদুর রহমান, সৈয়দ মনজুর মাসুদ (অপি), সুলতানা শিরীন সাজি। নৃত্য পরিবেশন করেন- আফরোজা খান লিপি, আচল, নবনীতা, আলিশা। এছাড়া সেতারে সুরের মূর্ছনা তুলে দর্শকদের বিমোহিত করেন ইপশিতা রফিক। অর্পিতা দাশ ও অহর্ণা চৌধুরী কানাডার জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করে।

অনুষ্ঠান সঞ্চালক আশ্রম সম্পাদক কবির চৌধুরী, উপস্থিত মুক্তিযোদ্ধা, সুধীবৃন্দ, ভলান্টিয়ার, ঊষা মিউজিক স্কুলের শিক্ষার্থী, শিক্ষক, সত্বাধিকারী, শিক্ষার্থীদের মাতা-পিতা, এবং অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী অন্যান্য কলাকোশলীসহ সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে –‘আমার দু’চোখ ভরা স্বপ্ন- ও দেশ তোমার জন্য’, বলে রাত প্রায় ১১-৩০মিনিটে ‘মহান বিজয় দিবস-২০১৭’ উপলক্ষে আয়োজিত বিজয় উৎসবের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।  

ফটো ক্রেডিট- জামাল চৌধুরী, কৃতজ্ঞতা স্বীকার- ঊষা মিউজিক স্কুল, শাহ বাহাউদ্দিন শিশির এবং তপু ঘোষ। 

অটোয়া, কানাডা