অটোয়া, শুক্রবার ২০ মে, ২০২২
অমিতা মজুমদার এর দু'টি কবিতা

দিবস ও বিচারহীনতা 
মানবিকতা আটকে পড়েছে, 
দিবসের শৃঙখলে।
আজ রানাপ্লাজা দিবস,
কাল নিমতলি ট্রাজেডি দিবস।
তারপরের দিন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ভয়াল হত্যাযজ্ঞ দিবস।
কিছুটা আহাজারি,সংবাদের হেড লাইন,
ক্যামেরার সামনে মুখ দেখানোর প্রতিযোগিতার ইঁদুর দৌড়!
বেশ একটা উৎসব উৎসব আমেজ সকাল থেকে,
কী বলতে হবে,
মোমবাতি নিয়ে কেমন করে দাঁড়াতে হবে!
কতটা দরদামে রফা হবে,
এই সব মহা আয়োজন। 
ক্ষতিগ্রস্ত,স্বজন হারানো পরিবার, 
আর একবার আইনের দরজায় মাথা ঠুকবে।
দিনশেষে চলে যাবে, সেই আঁধার ঘেরা জীবনে,
যেখানে আলো ছিল,হাওয়া ছিল,
ছিল ভালোবাসায় ঘেরা কিছু জীবন।
যাদের কেউ কেউ হারিয়ে গেছে,
ঐ দিবসের নির্মম রোষানলে। 
কিছু অতৃপ্ত দীর্ঘশ্বাস, অপেক্ষা করে থাকবে ---
হয়তো বিচার হবে,
বিচার হলেই বন্ধ হবে এই দিবস দিবস খেলা।
অপেক্ষা,অপেক্ষাই রয়ে যায়!
বিচারহীনতার ছিদ্র দিয়ে আবার ঢুকবে কোনো কালসাপ!
যা'র  দংশনে দিবসের সংখ্যায়,
আরও একটা অঙ্ক যোগ হবে।
আরও কিছু জীবন হারিয়ে যাবে অকালে,
আরও কিছু স্বজনের জীবনে অন্ধকার গাঢ় থেকে গাঢ়তর হবে।

স্বতন্ত্র ভাবনা
মুদ্রের জলকণা মেঘ হয়ে যতই উপরে উঠুক,
উৎসে ফেরার আকাঙ্ক্ষায়  বৃষ্টি হয়ে ঝরে সেই সমুদ্রের বুকে।
ঝরা শিউলি বৃন্তে রেখে আসে তার আগামীর বীজ,
যা বৃক্ষ হয়ে নতুন করে শিউলি ফোটাবে।
কেবল মানুষেরই আর উৎসে ফেরা হয় না,
হয়তো-বা ফিরতে চায় না।
দূরে যেতে যেতে উৎসে ফেরার আকাঙ্ক্ষাটাও, 
হারিয়ে ফেলে তার দিশা।
খুঁজে নেয় নতুন ঠিকানা,
হয়তো এটাই মানুষের অনিবার্য পরিণতি।

অমিতা মজুমদার। বাংলাদেশ