অটোয়া, শনিবার ২৭ নভেম্বর, ২০২১
পুষ্পিত দেহে বিভবের দিঘি - মুতাকাব্বির মাসুদ

দেখোনা আমার ইচ্ছেগুলোর কুষ্ঠমরণ
অধরপল্লবে অধিগম্য সুখের মরণ পতন
দেখো না নিশির লুকিত চোখে
লীলাকমলের দাহিত সুর, রক্ত সন্ধ্যায়
নিসঙ্গ দিগন্তে, মেঘপবনে নিশাবসানে
চাঁদের অশ্রুজল

নিঃশেষে কৃষ্ণচূড়ার কাব্যঘরে
ইচ্ছেগুলোর মরণবেদন
কৃষ্ণনিশির মাধবি ঠোঁটে,আমার রূপালি শরীর
সবুজের আল্পনার ছোঁয়া
মসৃণ শরীরে মাধুকরির স্পর্ধিত চোখ
প্রজাপতির গীতিময় কোমল ডানায়
আমার লোহিত যৌবনের অতুল পরশ
শুচি চন্দনীচুম্বনে সমর্পিত
সভ্যতার কারাগার কাব্যঘর

বেদনায় এ দেহ রক্তকমল
মর্মবেদন নিতল অন্তরে
উদ্ গত যত স্বগত উচ্চারণ
প্রহসনের উদাস ইতিহাস...!

এ কেমন কাব্য কবি ! 
জীবনের নন্দিত দেহে শূন্যতায় কাঁদে বুক 
দীঘল অন্তরে
আমার পুষ্পিত দেহে বিভবের দিঘি
বিদ্যমান সত্য ইতিহাস ! 
পক্ষপাতের তর্ক ছেড়ে, মূর্ত কর অন্তরসত্য
বিভাসিত এই আমি- শুচি কর
সভ্যতার কোমল আলোয়,
অতুল প্রেমে, দ্বিধাশূন্য মনে
জাগ্রত হই মহাকালের পুষ্পিত ঠোঁটে
সূর্যের দীপ্ত আলোর সংগীতে...

বুকের ভেতর গোলাপি অন্তর
কষ্ট নিরন্তর- এদেহ সবুজ চাদর
মালতি আল্পনা- কষ্টসুখের ভেলা
কাজলচোখে ভর করেছে রক্তজবার খেলা
ভালবেসেই মরেছি যত
চোখের জলে কাঁদব কত
শুধিবে কী আর প্রণয়জ্বলন

ভিক্ষাতে কী হয় শুচি প্রাণের আবেগ ! 
একটুখানি মানবচন্দন দাও ছিটিয়ে 
আমার অতৃপ্ত দিঘলবুকে,
ফিরিয়ে দাও নোনাবুকে 
সভ্যতার নন্দিত পাণ্ডুলিপি
জোছনা রাত,মায়াবী চাঁদ,-  নববধুর আদূরী চোখ
ফর্শা হাতে- কলাবতীবালার তানসেনীয় সুর
নিশার আঁধারে নিশিবকের নিশঙ্ক কলরব
নিশিবনে চিতল হরিণের প্রণয়মিলন
নীল কাকাতোয়ার বিলাসী প্রেমের বিশ্বাসী  চুম্বন
আঁকা বাঁকা গ্রাম্যনদীর শীতল জল
সাগরের নোনাচোখের নীল ঢেউ
প্রজাপতির রকমারি ডানায়- 
আমার প্রেমের যত স্বপ্নচিত্র ! 
ফিরিয়ে দাও আমার প্রেমের
অনিন্দ্য কাব্য !  

মুতাকাব্বির মাসুদ। বাংলাদেশ