অটোয়া, শনিবার ৭ ডিসেম্বর, ২০১৯
দিবস নয়, নিরাপত্তা চাই - তাসনোভা জাহান সাম্মা

নারী দিবস সেলিব্রেট করার কথা ভাবছেন? 
পারপেল পড়বেন নিশ্চয়ই? 
সকালে প্রিয় মুখ আপনাকে আগলে নিতে নিতে হাসিমুখে বলবে, "Happy Women's day", তাই না? 
আর এইসবের সাথে বুকের ভিতরের একটা সুপ্ত আত্মবিশ্বাস জেগে উঠবে বিজ্ঞাপনে, নাটকে, টকশো তে অথবা সরকারী-বেসরকারি বড় বড় লোকদের কাছ থেকে সীমাহীন সম্মান পেয়ে। 
একবার কি ভেবে দেখেছেন যে, এই সম্মানটুকু মাত্র ২৪ টা ঘন্টার জন্যে??  বছরে বাকী ৩৬৪ দিন আপনার সাথে কি কি হচ্ছে??  কিংবা আপনার মেয়ে বা বোন বা বান্ধবী বা প্রতিবেশী কোন নারীর সাথে কি কি হচ্ছে??
এই দেশের কোনো মেয়ে জোর গলায় বলতে পারবেনা যে তার সাথে হ্যারাসমেন্ট হয় নাই। মানসিক ভাবে নয়তো শারীরিক ভাবে প্রতিটা মেয়েই এই নির্যাতনের শিকার হয়েছে, হচ্ছে এবং হবে। কি আশ্চর্য না! আমি কত সহজেই কথাটা বলে দিলাম ভবিষ্যৎ বাণীসহ। কেন বললাম জানেন?  কারণ আমাদের দেশে আইন আছে কিন্তু তার কোন প্রয়োগ নেই। আমরা পড়ি, দেখি, শুনি, জানি কিন্তু প্রয়োগ করিনা। এই বিষয়টা নিয়ে একটা ছোট ঘটনা বলি- ২০০৯ সাল, আমি তখন ক্লাশ নাইনে পড়ি। সন্ধ্যায় আম্মু-আব্বুর সাথে বের হই একটি দাওয়াতে যাওয়ার জন্যে। মালিবাগ মোড়ে অনেক মানুষের মধ্যেই আমি আম্মুর হাত ধরে দাঁড়িয়ে আছি। আব্বু সিএনজি খুঁজছেন, এমন সময় হঠাৎ করেই বিপরীত দিক থেকে একটা লোক ঝড়ের গতিতে এসে এলোপাথাড়ি আমার শরীর হাতরে কেটে পড়েন। হতবাক, লজ্জা, কান্না সব ঘিরে ধরেছিল। আম্মুকে বুঝতে না দিয়ে বললাম যে, অন্যদিকে গিয়ে দাঁড়াই। অন্যদিকে যাচ্ছি এমন সময় ওই একই লোক আবার ঝড়ের গতিতে এসে আমার শরীরে হাত দেয়। লজ্জায়, ভয়ে আমি সেদিন রাতে স্বাভাবিক থাকতে পারিনি, কাউকে বলতেও পারিনি, এমনকি নিজের মাকেও না।
আমার মতো না বলতে পারা মেয়ে এই দেশে শতকরা ৯৫ ভাগ। ৯ বছর আগের এই ঘটনা এখনো এ দেশে চলছে। শুধুমাত্র পহেলা বৈশাখ কিংবা কোনো বিশেষ দিন নয় বরং প্রতিনিয়তই মহাখালী, ফার্মগেট, সায়দাবাদ, গাবতলী এসব এলাকায় এরকম ঘটনা ঘটেই চলেছে, এমনকি ৭ই মার্চ এর র‍্যালীও এর ব্যতিক্রম ঘটেনি।
এবার বলুন আপনি কি চান? 
নারী দিবস?? নাকি নারী নিরাপত্তা?? 
একদিনের অজস্র সম্মান নাকি সারাজীবন আপনার কিংবা আপনার মেয়ের কিংবা আপনার বোনের নিরাপত্তা??
আসুন আমরা নারী 'দিবস' নয় নারী 'নিরাপত্তা' চাই। সম্মান এর চাইতে নিরাপত্তা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ নারীর একটি সুন্দর ভবিষ্যতের জন্যে। 
যদি সন্দেহ থেকে থাকে, এখনি নিজেকে প্রশ্ন করুন উত্তর আপনার চারপাশেই পাবেন।

তাসনোভা জাহান সাম্মা
ঢাকা, বাংলাদেশ।