অটোয়া, বুধবার ১৯ জুন, ২০২৪
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর - ডাঃ নীলাঞ্জন চট্টোপাধ্যায়

জেগে দেখা স্বপ্নটাকে সত্যি করে
বুকের মধ্যে স্বাধীনতার বীজটি দিলে,
যত্ন নিয়ে বপন করে;
একটি মানুষ,
আপোষহীন সংগ্রামী মন
লড়াই শুধু, আজীবন;
অত্যাচারীর চোখের দিকে চোখটি রেখে,
তানাশাহীর শাসনের দণ্ডটাকে  কেঁড়ে নিয়ে,
বাঙালির যত ব্যাথা বুকের মাঝে আগলে রেখে -
একটি মানুষ লড়াই করে সারাজীবন,
স্বাধীনতার খোলালো দ্বার,
নিয়ে সবার বুকের ভার -
সেতো  চির বান্ধব শেখ মুজিবুর,
যে লিখল স্বাধীনতার নতুন গাঁথা,
নব অক্ষর;
হে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর।।

রমনা থেকে উঠলো ধ্বনি, মুক্তির সুরে, গানে,
যে বোঝালো, বাঙালিকে,
স্বাধীনতার মানে -।
সে যে কেউ নয় আর,  যে জ্বাললো সেদিন,
মুক্তির দীপ;
সব হৃদয়ে আবেগের বিস্ফোরণ -
সেই আবেগের অন্য নাম, সবাই জানি
শেখ মুজিবুর-, বাঙালির নয়নমণি;
যে লিখে দিল বাঙালির স্বাধীনতার
নতুন আখর-
হে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর।।

শোষন আর অত্যাচারের  অবসানে,
যাঁর লড়াই, ত্যাগ, ভালবাসা,
ঘরে ঘরে  তুললো আওয়াজ স্বাধীনতার,
সকল মনে -
গরীব, আমীর, যে যেখানে।
জন্ম দিল সে আওয়াজে,  নতুন ভাবে একটি জাতি ;
লিখে দিল বাঙালির স্বাধীনতার নতুন আখর,
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর,
হে বঙ্গবন্ধু, শেখ মুজিবুর।। 

যদি এমনই হয়, স্বজন, বন্ধু
যে কাঁদে, হাসায়,
ঝরায় অশ্রু সবার ব্যাথায়-
সে যে থাকে বুকের খাঁজে, তোমার আমার  বঙ্গবন্ধু।।

সেই একটি মুজিব থেকেই যেন,
লক্ষ, কোটি, হাজার মুজিব-
রণক্ষেত্রে, শিক্ষালয়ে, জনপদে, ঘরে, ঘরে,
ছড়িয়ে গেল বহ্নিশিখায়,
প্রান্তরে ঐ  বন্দরে;
ঐ যে সুদুর দেশান্তরে-।
একটি নামের ছায়ার তলে,
হে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর,
শেখ মুজিবুর।।

জন্ম নিল রক্তিম সেই সূর্যটাকে জাপটে ধরে,
কেতনের সবুজ বুকে-
একটি  দেশ;
বাংলাদেশ, সে আমার বাংলাদেশ -
বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন মায়ায় জড়ানো আবেশ,
একটি দেশ-
বাংলাদেশ, সে যে বাংলাদেশ,
যতদিন সূর্য, চন্দ্র ঐ আকাশে,
হেসেছিল সেদিন যেমন, আজও হাসে -
ততক্ষন লক্ষ কন্ঠে ধ্বনিত হোক,
হে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর,
শেখ মুজিবুর।।

ডাঃ নীলাঞ্জন চট্টোপাধ্যায় । কলকাতা