অটোয়া, বুধবার ১৯ জুন, ২০২৪
নির্মল কুমার প্রধানের কবিতা

১) আমার ভালো লাগে

তোমার কান্না আমার ভালো লাগে। 
তুমি মেঘ হ'য়ে অশ্রু বৃষ্টি পশলা পশলা ঝরালে
উৎফুল্ল না হ'য়ে আমি পারি কই?
নীরব কান্নায় পাথুরে বুকে ফুল ফোটালে
আমি অবাক হ'য়ে যাই, আনন্দ পাই, 
অন্তত ঘুরে দাঁড়াই কিছুক্ষণের জন্য হ'লে ও।

নদীটা যখন বাঁক ঘোরে চর পেরিয়ে , ঝিরঝির কান্নায়
তখন চোখ মেলে চেয়ে দেখি মূর্ত খেলা
আবার বিষণ্ণতায় মরু চরে হারিয়ে গেলে
সেই বিপন্নতাকে ছায়া ক'রে আমি প্রদীপ শিখায় জ্বলি
স্বান্তনার ভাষা বললেও আমি স্বভাবজ খুশি হই।

তুমি বোবা কান্নায় রাত চরা পাখির মত ডাকলে
শব্দের প্রতিধ্বনি আকাশ- মাটিতে 
নিরন্তর অনুরণিত হ'লে আমি কান পেতে শুনি
মনে মনে বুনি অপূর্ব কল্পনা জাল নিঃশব্দে 
তোমাকে অবহেলা ক'রে নয়, ভুল বুঝে নয়, 
শুধু ভালোলাগায় ভালোবাসা মেশাই আপনমনে।

২) ফিকে 

দূরে   ধোঁয়াশা ধোঁয়াশা প্রকৃতির খেলা
         শেষ হ'য়ে আসে অবসন্ন বেলা
               রক্তিম সূর্যটা পশ্চিমের ঢালে
               শুনি সুর পূরবীর বাজে ত্রিতালে।

ওই    দিকচক্রবালে আঁধারের ধ্বনি 
         তায় ঠোকে তাল নীরব খঞ্জনি
              আলোর মঞ্জীর ধ্বনিত গরবে
              ভুঁই ভাঙা দেয় স্তিমিত পূরবে।

ফিকে  পথ রেখা ধরে আসো যাও কে গো
           কোন্ কাননের তুমি মায়ামৃগ?
                 যদি পাই ধরা তবে সুখ পাই ---
                 আশা পথে দেখি নাই কিছু নাই!

নির্মল কুমার প্রধান 
দক্ষিণ ২৪ পরগণা, পশ্চিমবঙ্গ