অটোয়া, শুক্রবার ২০ মে, ২০২২
গোলাম কবিরের দু’টি কবিতা

বড়ো হবার স্বপ্ন
ছোটবেলায় আমার খুব বড়ো হতে ইচ্ছে হতো, 
আকাশের মতো অনেক বড়ো, 
পাহাড়ের মতো ঋজু এবং সংহত, 
নদীর অবিরাম বয়ে চলা দেখে তার মতো 
ক্লান্তিহীন ঘুরে বেড়াতে ইচ্ছে হতো পৃথিবীর সর্বত্র, 
পাখির মতো ডানামেলে পাসপোর্ট ভিসার জটিলতা মুক্ত থেকে 
বাংলাদেশ থেকে উড়ে গিয়ে কখনো সাইবেরিয়া কখনো মরু সাহারায় 
এমনকী ঘন আফ্রিকার জঙ্গলেও যেতে ইচ্ছে হতো! 
এখন ধীরে ধীরে বয়স যতো বাড়ছে, 
মনে হচ্ছে আমি তো বড়ো হইনি, 
কেবলই ছোট হচ্ছি, কেবলই ছোট হচ্ছি! 
ছোট হচ্ছি ফুলের কাছে বৃন্ত থেকে ছিঁড়ে নিয়ে, 
ছোট হচ্ছি নদীর কাছে ওদের স্বাভাবিক গতি 
রুদ্ধ করে বাঁধ দিয়ে, পাহাড়ের কাছে ছোট হচ্ছি 
ওর বুকে জন্মানো গাছপালা কেটে কুটে 
এবং ওর বুক কেটে মাটি সরিয়ে, 
আকাশের কাছে ছোট হচ্ছি পৃথিবীর বাতাসে 
কল কারখানা ও যানবাহনের ধোঁয়া ছড়িয়ে, 
পাখিদের কাছে ছোট হচ্ছি ওদের 
নিরাপদ আবাসনের ব্যবস্থা না করতে পেরে, 
মানুষের কাছে ছোট হচ্ছি নিজেদের ভিতরে 
লুকিয়ে থাকা পশুটাকে মারতে না পেরে, 
নারীদের কাছে ছোট হচ্ছি তাদের 
প্রকৃত মর্যদা দিতে না পেরে। 
তবে আমরা কি আর কোনো দিনই 
বড়ো হতে পারবো না,
বড়ো হবার স্বপ্ন কি তবে 
স্বপ্নই থেকে যাবে চিরকাল!

উধাও হৃদয়ের প্রতি 
খন মানুষের হৃদয় নামে আর কিছু
আছে কী বাকি? হৃদয় এখন 
উধাও হয়ে গেছে, কারণ বলতে গেলে 
চোখে নেমে আসে শ্রাবণ ঢল!
নদীর ভাঙনে যেমন সম্পন্ন গৃহস্থ বাড়ির
লোকজন সবকিছু হারিয়ে উঠে আসে 
অন্য কোনো শহরের বস্তিঘরে অথবা
শোকার্ত গৃহস্থ ব্যক্তি পাগল হয়ে ঘুরে ;
হৃদয়ও তেমনি চলে গেছে মানুষকে ছেড়ে,
আছেন শুধু হৃদয়নাথ। ওপর থেকে 
শুধুই তামাশা দেখেন তিনি মানুষের। 
প্রতিদিনই মানুষের মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে,
তবুও মানুষের হৃদয়ে কোনো আঁচড় 
লাগে না! এখনো মানুষ ভালবাসার নামে
প্রতারণা করে, দূর্নীতির মচ্ছব লেগে থাকে
সর্বত্রই, ধর্ষণ করে, এমনকী
ভালো মানুষের মুখোশ পরে অমানুষেরা
হিংস্র পশুকেও হার মানায় তাদের কর্মে! 
হৃদয়, তুমি উধাও হয়ে আর কতোদিন রইবে,
ফিরে এসো আবার মানুষের ভেতর।

গোলাম কবির। ঢাকা