অটোয়া, শুক্রবার ২০ মে, ২০২২
ড. মুতাকাব্বির মাসুদ এর ফেসবুক পেজ থেকে দু’টি কবিতা

আশার গল্প
"কি সব হারানোর গল্প লিখো, আশার কথা বলো।"
তো শুনো তোমার আশার কথা 
আশা বাড়ি আসলো আর বললো 
এক গ্লাস ভবিষ্যৎ দাও 
জগ তো খালি! কীভাবে দেবো? 
তো আমার সেই এক কলসি অতীত? 
সেটা দাও 
তোমার সে কলসি তো কবেই 
মহাবিশ্বের মহাকালে যাত্রা করে 
শূন্যে-শূন্য দিয়ে জটিল জীবনের 
নতুন সমীকরণ গিলছে 
তোমারই সেই পুরনো ভাঙ্গা গেলাসে ! 
তো এবার আশা বলে ঠিক আছে 
আমার এক চামুচ বর্তমান চাই 
এতোসব চাওয়াচাওয়ির কোনো এক ফাঁকে 
অশীতিপর সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলো 
নবোদিত কালের দুর্বোধ্য চোখের ওপাড়ে
আশার বর্তমানটাও হারিয়ে গেলো
এটাও হতে পারতো আশার জীবনের একটি
অনুক্ত গল্প! 'আশার' গল্প!
কিন্তু 'আশা' এখন আর বাড়িতে থাকেনা
শুনেছি নক্ষত্রের ধ্রুপদ ছোখের চাতালে 
'বিসুবিয়াস'র জ্বালা বুকে অনল বিরহে
তুলেছে ঘর!
নীল মেঘের রিক্ত বুকে
শূন্যে তাঁর বসবাস 
কী করে তাঁর কথা বলি বলো? 
দ্র. উপরে উক্তিতো প্রথম লাইনটি যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী আমার বন্ধুর। সে আমার কাছ থেকে 'আশার' গল্প শুনতে চায়। কিন্তু আমি পারি না। নিরাশার অত্যাচারে আশারা এখানে মৃত। বন্ধু তা জানে না! 

নষ্ট কীট
ষ্ট সলতের আলোয় আজন্ম নষ্ট কীট
কখনো আলোকিত হয়না
বিশ্বমানবতার আঁচলে প্রত্যাশার উষসী 
নষ্ট ধূলোয় আজ দৃষ্টিহীন
অতি নষ্ট ধূলোয় জখমে জখমে
হারিয়ে যায় প্রজ্ঞার দৃষ্টরজা
দুরন্ত প্রজাপতি
নিরিহ শালিকের বুক
লাল সুতোর ঢেউ
রক্তের বাঁকে রক্তের তরঙ্গ 
ধারালো ছুরির নিচে শুয়ে আছে
মানুষ আর মানবতা
নষ্ট বিউগল পারেনা সুরের মূর্ছনায় 
করিতে উন্মূল উন্নিদ্র যত নষ্ট কীট
আর কতো?
এ দুরাগ্রহ দুর্বৃত্ত সময় মুক্তি কি দেবেনা
দেবেনা অনুদ্বেগে-একটি নির্বিশঙ্ক জীবন? 

মুতাকাব্বির মাসুদ। বাংলাদেশ