অটোয়া, বুধবার ১৯ জুন, ২০২৪
দীপ্তিময়ী - কাজল দত্ত

সেই বুঝি আমাদের প্রথম পরিচয়
যেদিন বর্ণের হাটে দেখেছি তোমায় ।
সেই দ্বিপ্রহরে, পারেনি রাখতে ধরে, আমার এ হৃদয় ,
চিনে ছিল ঠিক হারিয়েছিল দিকবিদিক,
ছুটেছিল সে তোমারই  কাছে  এক ঝটকায়। 
সেদিন শুখাচর হতে নামি, ভেসে ছিল আমার এ ভাঙ্গা তরী,
তোমার উছল করা দিল দরিয়ায়।

দোলায় দোলায় দুলিয়েছিল তোমার দরিয়ার বুকের উত্তাল সুরলহরী।
তাই বুঝি আজ, সরিয়ে সকল লাজ, এ মন শুধু বেসেছে ভালো তোমারই।
কে তুমি? চৈতি বাতাস! না, প্রকৃতি সুন্দরী,
ছড়াও তুমি বাসন্তিক গোধূলিতে প্রেমাতুর মনে প্রেমের মঞ্জুরি!

দগ্ধ দহনে কত শব্দলিপি জাগে মনে,
মানষ লোকের চিত্রপটে আজও তুমি অধরা রহস্যাবৃতা,
বাতাসের কানাকানিতে শুনি কান পেতে
বলে যায় সে-
 তুমি যে আমার দীপ্তিময়ী প্রভাতের সেই কবিতা।

কাজল দত্ত
বসিরহাট, উত্তর চব্বিশ পরগনা
পশ্চিমবঙ্গ, ভারত