অটোয়া, শুক্রবার ২০ মে, ২০২২
ইচ্ছে - ডাঃ নীলাঞ্জন চট্টোপাধ্যায়

চ্ছেগুলো আকাশের তারার মতো এখনও,
মনের মধ্যে লেপ্টে আছে,
চারাগাছ যেমন জল আর আলোর জন্য অপেক্ষা করে থাকে,
ছাড়তে চায়না -
তেমন করেই মনের সব শাখা-প্রশাখাগুলোকে আষ্টেপৃষ্টে জড়িয়ে রেখে,
ওরা বড় হতে চায়!
চারাগাছ থেকে মহীরুহ হবার বাসনায় ;
আর্ত আর আশ্রিতের মাথায় ছায়া দিতে -
আসলে ভাল কিছু করবার তাগিদ আর বাসনা কি হারিয়ে যায়!
সেই ইচ্ছে থেকে যায় মনের গভীরে -
সম্পূর্ণ ভাবে কিছুই হারিয়ে  যায়না ;
মেঘের আড়ালে সূর্যর চলে যাওয়ার মতো,
কিছু মুহূর্তের আড়াল,
কিছু সময়ের দেওয়াল-!
সব কিছু ঠিক তেমন ভাবেই রয়ে যায়,
অন্য আকাশে, অন্য আকারে।।

চাঁদ আর তারা যেমন করে,
দিনের আলোর আবরনে,
ঢাকা পড়ে যায়  --
তেমন করেই ইচ্ছেরা সব ডুবে যেতে চায়
প্রতিকূলতার  অতলান্ত সাগরে--।
"সময়" আসে যখন, তার একান্ত  সময়টুকু নিয়ে,
ইচ্ছেরা তখন ডানা মেলে উড়ে যেতে চায়,
অনেক দূরে, নীল আকাশের মোহনায়।
চলার পথে খড়কুটো জমিয়ে রাখা  ছিল;
ছিলনা স্থির দৃষ্টি, অবিচল মন --
বাবুই পাখির মতো  চোখে থাকবে
অর্জুনের দৃষ্টি--
মননে যেন বিজলীর তরঙ্গায়িত পরিক্রমণ-
নীরব রক্তক্ষরণ!
তবেই যে নিখুত বুননে নীড় বেঁধে নেওয়া ;
নিষ্ঠা আর বিশ্বাসের সলতে পাকিয়ে-
দীপ প্রজ্জ্বলিত হয়-
ভালবাসার ইট, কাঠ,পাথরে,
উঁকি দেয় স্বপ্নের নীড়।
ইচ্ছেরা এভাবেই  হয়ে যায়, এক একান্নবর্তী পরিবার --
স্বপ্নরা নেমে আসে বাস্তবের মাটিতে
বিমূর্ত নীরবতায়।।

ডাঃ নীলাঞ্জন  চট্টোপাধ্যায়। কলকাতা