অটোয়া, সোমবার ২৩ মে, ২০২২
যখন স্মৃতির পাখিরা কথা বলে - সুনির্মল বসু

দাসী পড়ন্ত বিকেলে নদীর তীরে এসে দাঁড়ালে নিজেকে অন্যভাবে খুঁজে পাই,
জলধারার মতো জীবনের কত পথ, কত স্মৃতি হারিয়ে গেল, বেপথু দীর্ঘশ্বাসের মতো বাতাস বয়ে যায় স্মৃতির জানালায়,
নদী ও আকাশ যেখানে মিশেছে, কারা যেন ওপারে চুপি চুপি কথা কয়, আকাশের প্রান্ত সীমানায়,
দেবদারু শিমূল জারুল গাছ হাসে, যারা চলে গেছে, তারা কি আর আসে, বুঝিনা, একান্তে বসে আছি কাদের আশে,
বিপ্রতীপ দুঃখ গুলো আজও যে কাঁদায়,
বসন্ত বাতাস কবে এসেছিল, কবে চলে গেছে, জানা হয়নি আমার,
নদীর ওপারে প্রিয় মানুষ, প্রিয় মুখে হেঁটে যায়,
সময় যা দেয়, তা সব একদিন কেড়ে নেয়,
অর্থ খ্যাতি নারী, আর জরুরী নয় জীবনে,
ক্ষণে ক্ষণে ছুটে যাই স্মৃতি অন্বেষণে,
স্মৃতি কেন যে পিছু ডাকে, কারা যেন পিছন থেকে নাম ধরে ডাকে,
ভালো লাগে নীল আকাশ, এই আলো, মানুষের মুখ,
এই যা পেলাম, সেটুকুই সুখ।
ফেলে আসা পথ তবু ডাকে বারে বার,
আমার সঙ্গে যাবি, আয় না আবার,
স্বপ্নে দেখি, সবুজ মাঠে ছুটছে আমার অতীত,
অভাবী সংসার, ভালোবাসা অফুরান,
কারা যেন স্মৃতিতে আনে ভালোবাসার বাণ,
দেখতে দেখতে বয়স বাড়লো, নদীতে কত জল বয়ে গেল,মন তো সবুজ, দৌড়োয় আজো,
কত বিষন্ন স্মৃতি পেরিয়ে এলাম, কত যে পেলাম, কত হারালাম, বড় ভুল অংকে ভরা জীবন, মেলাতে পারবো কি কখোন, স্মৃতি যে স্বপ্নে মগন,
রাতের জোনাকি, বাঁশবনের আলো-অন্ধকার, অরণ্য পাখির গান, বাল্য সখীর মধুর স্মৃতি, কবে যে পথ হারালো, উদাস মাঠ, জামরুল বন, কাঠবাদাম গাছ, দীঘল পুকুর আজো যে ডাকে,
সেদিনের দুঃখ গুলো আজ সুখের পাপড়ির মতো কৃষ্ণচূড়ার ফুল হয়ে ঝরে পড়ে, কদম ফুলের বন সাক্ষী হয়ে থাকে, শিমূল তুলোর মতো স্মৃতি ভেসে যায়, কথার কাকলি, আলোছায়ার দিন কথা বলে ওঠে, বর্ষার দিনে কচু পাতা মাথায় দিয়ে আমি আর ভাই ভেজা শালিক ধরতে যাই, ঝিলে গঙ্গাফড়িং উড়ে যায়, পদ্মপাতায় বাহারী প্রজাপতি ওড়ে,
রাতের তারা ভরা আকাশ, উড়ন্ত ঈগল, সমুদ্রের গান, আজও যে হৃদয়ে আনে প্রশান্তির বাণ,
এই স্মৃতি সত্তা নিয়ে ভবিষ্যতে যাবো, যাদের হারিয়েছি, তাদেরকে আর কখনো কি কাছে পাবো,
নীলাঞ্জনা, আজও কি তুমি এই বিষন্ন সন্ধ্যায় আমার কথা ভাবো,
সূর্য ডুবছে, আকাশে তারা, আকাশে শান্ত চাঁদ,
মনে হয়, গহীন সমুদ্রে একাকী নাবিক আমি,
নীল শান্ত সমুদ্র, সঙ্গে কেউ নেই,
শুধু বিমূর্ত স্মৃতি, অজস্র কথামালা, কত মানুষের কত ভালোবাসা রেখে, সবুজ পৃথিবী ছেড়ে
আলোকবর্ষের সীমানা পেরিয়ে অনন্ত মহাজীবনের
কাছে একলা ফিরে যাবো,
সেদিনও আজকের মতো জীবন এভাবেই নদীর মতো সহজিয়া ছন্দে বয়ে যাবে।

সুনির্মল বসু। পশ্চিমবঙ্গ, ভারত