অটোয়া, সোমবার ২৩ মে, ২০২২
কাজী মাসুদ-এর কবিতা

সভ্যতার আর্তনাদ
স্বর্গ  যখন  মর্ত্য হলো
আদম হাওয়ার দোষে,
স্রস্টা তখন গড়লো স্বপন
জগৎ ভবে বসে।
হাসবে মানুষ বাসবে ভালো
সভ্যতারই ভেলায়,
এই পণটি মানলো তবু
কাটলো বেলা হেলায়।
নুড়ি পাথরে ঘর্ষে আগুন
পুড়িল  অজ্ঞতা!
কথা ছিল রাঙিবে ফাগুন
রচিবে সভ্যতা।
আদিম মধ্য অধুনা পেরিয়ে
বহিবে সু-বাতাস,
মানুষে-মানুষে ধর্ম ভেদিয়ে
দুঃখিলো হায়-হুতাশ!
ধনী রচিল অর্ঘ্য অবনী
গরীবের যাতাকলে,
এ নহে কভু বিধির বিধান
শাসিবে নিঠুর শিকলে।
কালের সাগরে মহাকাল অতলে
গড়িয়ে চলিছে বেলা,
বিধাতা তবু হাল ছাড়ে না
অসীমে অন্তর জ্বালা।
এসেছে শিশু জাগিবে তরুণ
ভাঙিবে শ্রেণীর নীড়!
জ্বালিবে আগুন রচিবে ফাগুন
সম গৌরব মমশির।

কালের খেয়া
কালের খেয়া পরশে হিয়া
ভিড়িল জীবন ঘাটে,
বরষে আকাশ গরজে বাতাস
সঁপিবে মিলন হাটে।
ধরিছে হাল উড়িছে পাল
উজানে মাতাল ঢেউ,
বাজিছে বীণা কাঁপিছে মনা
ফেরাতে পারেনা কেউ।
স্বপ্নেরা আজি ধরিছে বাজি
বাজিকরের পাশায়,
সুখিবে জীবন রুখিবে মরণ
অসীমে বিভোর নেশায়।
হেমন্ত ঘ্রাণে বসন্ত প্রাণে
রূপালী শিশির   প্রাতেঃ,
জোনাকি আভায় প্রেয়সী ভাবায়
শারদ পূর্ণিমা রাতে।
স্মৃতিরা সবে বিষাদে নীরবে
বিধূর পিয়াসী হিয়ায়,
শিউলি সুবাসে গাঁথেনা বিনাশে
ফেরারী কালের খেয়ায়।

কাজী মাসুদ। যশোর সদর, যশোর