অটোয়া, শুক্রবার ২০ মে, ২০২২
একগুচ্ছ কবিতা - নিলয় গোস্বামী

উদ্বাসন
খেলা থেমে যায় কৌশলী পায়ে কখনো
হোঁচট তখন সাক্ষীর মোড়ে বিনত
প্রথা ভাঙা চোখ নিয়ম জেনেছে আবারো
ছলের হলফ তুরুপ চেনায় মানতো ?

হাত মেলে দেখি নরম পলির বসন
গোধূলি যখন ভাসান চোখের খোরাক
কতো মুখ হয় স্মৃতির আভাসে ক্ষরণ
প্রিয়জন শুধু ভালোবাসা পেয়ে জোড়াক। 

আতপ মনের ফেরিঘাট ছুঁয়ে লহরী
বাতির নিচের আবছা টুকুই মিত্র
হেমন্ত যত প্রলোভন নিয়ে প্রহরী 
তুমি গড়েছিলে হৃদয়ের নীল গর্ত।

এখন দুহাতে ফিরছি আহুতি কুড়িয়ে 
প্রহর হয়েছে আগুন খেলার কাঠামো
স্বপ্নের ফেরি ভিড়ল যখন আঁধারে
তুমি জানিয়েছ কিছুটা রেখেছ অামারও।

ক্ষারক
হেমন্ত খদ্দের হলো শ্রাবণের গাঁয়
আকাশ সীমানা যার মেঘের পাড়ায়
অরণ্য নাভির ফুঁড়ে বিষাদ জমায়
পাতার পয়ার শুধু জোনাকিরা গায়। 
ছাতার প্রলাপ গুণে মিঠামুখী রোদ
শীতের ক্লান্তির পরে বরফ সবুর
ভোরের ফুলেরা নাচে পরীর ডানায়
সাঝির ঘাইয়েরা বাঁচে কুঁড়ি অপেক্ষায়।

বাতাসি শরীর চিনে শুশুকের টান
হৃদয় ইজারা গেলে ভরসা খানখান
আলোর গর্ভেই জমা তুরুপ নবিস
ছায়ায় বসতি গড়ে মনের হদিস।

দর্পণ ধোঁয়াসা থাক চোখের বৃত্তান্তে
রাগিণীর স্রোত ঝরে পেয়ালার ঠোঁটে
খুঁজের উদ্যম টুকু দৃশ্যের মুরদ
হাড়ের ঝালাই করে ধবল ক্ষীরোদ।

সিঁথির সুরেণু খুঁজে বিমূর্ত প্রতাপ
তিমির সুবহ খুঁড়ে জমায় সন্তাপ 
ক্ষারক ধারাল শুধু জবাবের ঠোঁট
পশম নীরব থাকে দেহ রাখে খুঁট।

বিনুনি
ড়ের বিনুনি গাঁথে মেঘ
পথের শরীর যায় ধুয়ে
ছায়ার কায়ায় থাকে বেগ
বৃষ্টি নামছে দেখো ছেয়ে।

ঝিলের বিলাপ শুনে ফালিফালি মাছ
মানুষ অতল খুঁজে পুরাতন ধাঁচ
আলোর প্রদাহ গড়ে সুললিত রোদ
প্রহর আগলে রাখে অলিখিত বোধ।

প্রথার মুখোশ ভাঙে ভোর
আগুন সন্ধির কাছে ফিরে
জলের সঞ্চয় জানে ঘোর
আকাশ বেহুঁশ হয় ধীরে।

কথার সমুদ্দুর
সে প্রথম সম্ভাষণ,
মেঘলা সকালে হলুদ নদীর ঘাটে
চোখ পড়ে ছিল,রোদের শাসন ভেঙে
তুমি দাঁড়িয়ে থেকেই আকাশ নামাও হাতে
আমার ঝড়ের সাথে চুক্তিনামা বৃষ্টি আসে নেমে।

প্রথম স্নানের পরে, ভেজা বাতাসের ওম
আগলে রেখেছে মসৃণ অনুভব
ঘাসজল ছুঁয়ে ফেরারি মনের সুর
স্নিগ্ধ রোদের আবেশ ভিজায় কথার সমুদ্দুর।

ঢেউয়ের যতটা ঋণ, আগলে রেখেছে নদী
সময় তখন জমে আছে কোষাগারে
আমাদের কত গল্প রহেছে ওখানে
কেউ জানতে পারেনি এসব বৃষ্টি নামার আগে।

জমে থেক মনে স্মৃতি অনশনে গোধূলি নামার পরে
মায়াবী রাতের আঁচল নামিয়ে, রচে নেব অানমনে।

নিলয় গোস্বামী,
মৌলভীবাজার সদর, সিলেট
বাংলাদেশ।