অটোয়া, সোমবার ২৩ মে, ২০২২
তাজুল মারুফ-এর কবিতা

কাক ডাকা দুপুরে
তেতে রৌদ্রের পরশে-কাক ডাকা দুপুরে
প্রাণোচ্ছল পুকুরের হালকা তপ্ত হাওয়ায়
যে অবোধ বালকের সারি ডুবে আর খেলে
যে সোনালি মেয়ের ক্ষেতে হলুদ ধানের বৃষ্টি
তোমার নাকের ডগায় উঁচু গন্ধ ঢেলে দেয়-
তার ভেজা ওড়নায় তুমি খোলে দাও অরণ্য।
দপ করে নিভে যাওয়া বাতাস- তুমি ডুবে লও
মণি মুক্তোর হার।
সেকালের নদি মাছ আর শিউলির ঝাঁঁকে
সেকালের হাটে-বাটে যে জলসতেজ অগ্নিঝর্ণা
তার শিমূলতলায় তুমি লুটেরা হয়ে
কেড়ে লও তোমার আবাল্য শৈশব-
তেতে রৌদ্রের পরশে-কাক ডাকা দুপুরে।

প্রতিরোধ
মি যখন লিখতে বসি-
ওরা আমার কলম কেড়ে নেয়।
আমি যখন কথা বলি-
ওরা আমার কণ্ঠ বাজেয়াপ্ত করে।
আমি যখন সুর তুলি-
ওরা আমার হারমোনিয়াম ভেঙে ফেলে।
আমি যখন খেতে বসি-
ওরা আমার মুখে লাথি মেরে অভুক্ত রাখে।
আমি যখন চিৎকার তুলি-
ওরা আমার জিভ টেনে ধরে।
আমি যখন প্রেমিকার ঠোঁটে চুমু খেতে চাই-
ওরা আমায় ধাওয়া করে।
আমি যখন ভ্রাতৃত্ব চাই-
ওরা আমার বাড়ি লুটে নিয়ে যায়।
আমি যখন চোরকে দেখায়ে দিতে চাই-
ওরা আমার বুকে রিভলবার তাক করে।
আমি যখন বাঁচতে চাই-
ওরা আমায় বাঁচতে দিতে চায়।

তাজুল মারুফ। ঢাকা