অটোয়া, সোমবার ২৩ মে, ২০২২
অশ্রুত শব্দের ছায়া - এবাদুল হক

স্তিষ্কের মধ্যে টিকটিকির লাফালাফি রেশম মথের বিক্ষোভ
দহনের ভাঁজ খুলতে খুলতে আমি ঘর থেকে বাহিরে যাই
ঘর থেকে বাহিরে যাই পরমুহূর্তেই ফিরে দেখি বিছানায়
আমার ফেলে যাওয়া আমি বুকে নিয়ে শীতের দুর্ভোগ
অসহায় জড়োসড়ো ঘুমের রাজ‍্যে একা অচলায়তন
তার জানা ছিল না দুই হাঁটুর মধ‍্যে মুখ গুঁজে বসে থাকা ছাড়া
বালিশের মধ্যে ঢুকে শুয়ে থাকা ছাড়া আর কিছু করা যায়
বুঝতেই পারেনি সে কোনদিন কারণ আমার ছিল তাড়া
শান্তি চাই অস্তগামী সূর্যের শিয়রে শান্তি চাই

কিংবা আমি জেগে আছি অহেতুক কোলাহলে, ফলের কম্পনে
মৃত্যুগন্ধী বাড়িগুলির মধ্যে রাত্রির শরীরী অঘটনে
হৃদয়ে বিঁধেছে ম্লান আলো অথবা দৃষ্টির গাঢ় আক্রমণ
ঝরে পড়ে ফলগুলি ঝরে পড়ে মসৃণ প্রহরে ঝরে পড়ে
আহত নিদ্রার মাঝে শূন‍্যের বাগানে তার মৃদু আলোড়ন
চকিতে হারিয়ে যায় অথবা হেমন্ত ভাঙে শাড়ির জগতে
জাগরণ তাহলে, বলো জাগরণ কোথায় তোমার দেশ
সভ‍্যতার হাতে কি করে ধরিয়ে দেবে শিশুর প্রথম ভাগ
যতদূর যাও তুমি যত গভীরে করো মনোনিবেশ
অশ্রুত শব্দের ছায়া তোমাকে বিড়ম্বিত করে স্বপ্নের ভিতর।

প্রেমের সঙ্গে প্রেম, ভালোবাসার সঙ্গে ভালোবাসাবাসি সেরে
ঘুমিয়ে পড়ি নিজের পাশে দুজনের মধ্যে এক নির্বোধ গোধূলি
মগজের মধ্যে টিকটিকির দাপাদাপি রেশম মথের বিক্ষোভ
দহনের ভাঁজ খুলতে খুলতে আমি ঘর থেকে বাহিরে যাই
ঘর থেকে বাহিরে যায় একটি লালঘোড়া আমার মাটিতে
কিছু প্রশ্ন রোপণ করে।

এবাদুল হক। মুর্শিদাবাদ