অটোয়া, শনিবার ২১ মে, ২০২২
দেওয়ান সেলিম চৌধুরী-র কবিতা

তোমার খুঁজে
অঙ্গ বিহীন পতঙ্গ মোর,
যেদিন মেলিবে ডানা,
কোনখানে গিয়ে থামিবে পতঙ্গ,
সেতো পতঙ্গেরই জানা।

শুনিবেনা কারো কথা, মানিবেনা মানা
পতঙ্গ খুঁজিয়া নেবে, নিজ ঠিকানা।

নাহি রবে বেড়া ঘেড়া, বাধার দেয়াল
সত্যকে খুঁজে ফেরা, একমাত্র খেয়াল।

অংশ যেমনি ধায়, সমগ্র পানে
অঙ্গ বিহীন পতঙ্গ মোর
ছুটিবে তাহার টানে।

অন্ধকারে মুক্তি লভিয়া
ছুটিবে আলোর পানে।। 

ভয়, ভালবাসা নয়
ক্ষুদ্রাতি ক্ষুদ্র থেকে অতি বৃহৎ প্রাণ
সবাই আছে বেঁচে, সমানে সমান
হে মহান, সেতো তোমারই দান।
নীলিমা থেকে সমুদ্র গভীরে, নির্বিচারে,
সমস্ত প্রাণ ঘিরে, তোমার মহিমা ঝরে।
তুমি তো করনি হিসাব, কারো কর্ম্ম ধরে।

তবে তুমি কেন নিষ্টুর এত, মৃত্যুর পরে?
প্রাণের লাগি মৃত্যুর চেয়েও কঠিন,
কি আর হতে পারে।

তোমার প্রায় শতনাম, ছড়াইছে চারিদিকে যত গুণগান
তোমার সমস্ত মহিমার, একি নয় অপমান?

যাহারা তোমার নিষ্টুরতায়, অন্ধপ্রায়, করিছে বিশ্বাস
অক্টোপাসের মত জড়িয়ে থাকা হা-হুতাস।

তোমার লাগি, তাদের হৃদয়ে যতটুকু সঞ্চয়
কোথাও ভালোবাসা নেই, ভয় শুধু ভয়।।

স্বপ্ন দ্রষ্টার দুর্ভাগ্য
স্বাধীনতার সূর্য তখনো হয়নি উদিয়মান।
যারা মুক্তির স্বপ্ন নিয়ে, দিয়ে গেল প্রাণ।
তারাই বেঁচে গেলো, রইলনা কোন অভিমান।
জানিলনা স্বপ্ন তার দুঃস্বপ্ন হয়ে
আজো ঘুরিতেছে প্রেতাত্মার মত।

আরো কিছু স্বপ্নদ্রষ্টা, বেঁচে গেলো দুর্ভাগার মত।
সম্মান দিল না কেউ, শুধুই উপেক্ষিত।
পেলোনা কোন সনদ, কোনদিক হতে,
শুধু স্মৃতির জাবর কাটে, কল্পনার রথে।।
বাকী সব হয়ে গেলো হায়েনা যত
যত পায়, তত খায়, কুমিরের মত।
গরীবের সবটুকু করিয়া ভক্ষণ
ইমারত ছুইছে আকাশ, উন্নতির লক্ষণ।
দিনের সিংহ তারা, রাতের শেয়াল
কখন কোথায় যায়, রাখেনা খেয়াল।
দিনের বন্ধ কপাট, রাত্রে খোলে
নিজের গর্বটুকু, যায় যেন ভুলে।

একদা অনেক আগের গর্বিত দেশ
লজ্জায় হয় নত, একি তাদের বেশ?
তারা কি মুক্ত মানুষ, নাকি বুদ্ধিহীন প্রাণ।
তাদের নব্যরূপে, দেশ হয়রান।

বুঝিনা কোন কিছু, বোঝা বেশ ভার।
মাঝে মাঝে প্রশ্ন জাগে, দেশ খানা কার?

দেওয়ান সেলিম চৌধুরী অটোয়া, কানাডা